Wednesday, August 23, 2017
Facebook Twitter LinkedIn Google+

চীনা ভোক্তাদের ব্যয় কমায় বন্ধ হচ্ছে বিলাসবহুল ব্র্যান্ডের দোকান

brand

ঢাকা: ভোক্তাস্বল্পতার কালো ছায়া বড় রাস্তার দোকানগুলোকে ছাড়িয়ে মাঝরাস্তার দোকানগুলোকেও ছুঁয়ে ফেলছে। বিশ্বের বড় বড় তারাঝলমলে দোকানগুলো বন্ধ করে দিচ্ছে তাদের আউটলেটগুলো। এর জন্য প্রধানত দায়ী করা হচ্ছে চীনা ভোক্তাদের। বর্তমানে চীনা ভোক্তারা দেশে-বিদেশে ব্যয়ের রাশ টেনে ধরেছে। আর এর প্রভাব কম মারাত্মক নয়। ভবিষ্যতে আরো দোকান বন্ধের শঙ্কা করা হচ্ছে। খবর ব্লুমবার্গ।

গত এক দশকে চীনা ভোক্তার চাহিদা আর নতুন দোকান খোলা সমানতালে বিলাসী পণ্য বিক্রিতে ঘূর্ণিঝড় তৈরি করেছে। আন্তর্জাতিক বিশ্লেষক সংস্থা মেইনফার্স্টের হিসাবে, গত আট বছরে বিশ্বের বিলাসবহুল ব্র্যান্ডগুলোর রাজস্ব প্রবৃদ্ধির ৫৫ শতাংশ এসেছে নতুন দোকান বরাদ্দ থেকে। অন্যদিকে গবেষণা প্রতিষ্ঠান এক্সান বিএনপি পারিবাসের হিসাব অনুসারে, এক দশক ধরে বিলাসবহুল পণ্য বাজারের দু-তৃতীয়াংশই ছিল চীনা ভোক্তাদের দখলে। এ মুহূর্তে এ দুই পক্ষই গতি হারিয়ে ফেলেছে। হংকং বাজারের ধস ও চীনা অর্থনীতির শ্লথগতি দেশটিতে বিলাসী পণ্যের দোকান আর চীনা ভোক্তার ব্যয় উভয়ই কমিয়ে দিয়েছে।

চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে যেসব বিলাসবহুল ব্র্যান্ড তাদের দোকান কমিয়েছে, তার মধ্যে বিশ্বখ্যাত ইতালীয় ব্র্যান্ড গুচি ও এরমেনেগিলদো জেগনা রয়েছে। জার্মান বিলাসবহুল পণ্যের ব্র্যান্ড উগো বস এরই মধ্যে চীনের মূল ভূমিতে সরাসরি মালিকানাধীন ১৩১টি দোকানের মধ্যে ২০টি বন্ধ করার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছে। এছাড়া সারা বিশ্বে স্বল্প মুনাফা করছে, এমন ৪৩০টি দোকানের মধ্যে আরো ২০টির বিষয়ে পর্যালোচনা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে ব্র্যান্ডটি। এদিকে কোথায় দোকান বন্ধ করা হচ্ছে, তা নির্দিষ্ট করে জানায়টি আরেকটি ইতালীয় বিলাসপণ্যের ব্র্যান্ড প্রাডা। তবে যেভাবে এশিয়ায় ব্র্যান্ডটি আগ্রাসীভাবে সম্প্রসারণ হয়েছে, তাতে ধারণা করা হচ্ছে, বেশ কয়েকটি দোকান বন্ধ করবে প্রাডা।

গত সপ্তাহে সুইজারল্যান্ডভিত্তিক গহনা ও ঘড়ি নির্মাতা কোম্পানি রাইখমন্ট জানিয়েছে, হংকং ও ম্যাকাওয়ে প্রতিষ্ঠানের খুচরা দোকানগুলো নিয়ে পর্যালোচনা করা হচ্ছে। পর্যালোচনা শেষে কিছু দোকান বন্ধও করে দেয়া হতে পারে। এদিকে ভাড়া কমানোকে দোকান বন্ধের একটি বিকল্প হিসেবে দেখা হচ্ছে। ব্লুমবার্গের চিন্তাবিদ প্যাট্রিক উং মনে করছেন, হংকংয়ের কিছু এলাকায় ৫০ শতাংশ পর্যন্ত ভাড়া কমানো সম্ভব। কিন্তু প্রধান প্রধান বিপণিকেন্দ্রে দোকানের চাহিদা এখনো জোরালো থাকায় ভাড়া ছাড়ের সম্ভাবনা কমে গেছে।চীনা ভোক্তাদের ব্যয় কমায় বন্ধ হচ্ছে বিলাসবহুল ব্র্যান্ডের দোকান

মিমন হাসনাত
বিএলসি স্টাফ রিপোর্টার

সর্বশেষ সংবাদ